শুভ বসন্ত। আই লাভ ইউ

ভোরে প্রফেসর সাহেব হাটতে যান। এই ফাঁকে পুরোদুস্তর গৃহিণী মাঞ্জুরা মাহবুব একটু ঘুমিয়ে নেন।সকালের ঘুমটা না হলেই তাঁর নয়। ফজরের নামায শেষে প্রফেসর সাহেবকে এক কাপ লাল চা করে দিয়েই মেয়ের বিছানায় মেয়ের পাশে শুয়ে একটা আরাম ঘুম দেন। ফজরের নামাযের পরে প্রফেসর সাহেবের ছাদে গিয়ে বই পড়েন বা হাটতে যান।দুই আড়াই ঘণ্টা বাসার সবার জন্য পরম শান্তির।

আজ প্রফেসর সাহেবের কি হলো ? নামাযের পড়ে বাইরে না যেয়ে ঘরেই কি যেন খুট খুট করছেন।আরামের ঘুমকে হারাম করার জন্যই উনি এমন করছেন কি ? মনে মনে বিরক্ত হলেও চুটি করে শুয়ে রইলেন মঞ্জুরা। সকাল সাতটা নাগাদ এমন ঘুটোর ঘুটোর করে এক সময় উনি বাইরে গেলেন।

ঘুমটা যেন আবার আসছে মঞ্জুরার বেগমের।এরই মাঝে মেয়ে উঠে গেলো।ঘুম ভেঙ্গেই মেয়ে মাকে জড়িয়ে ধরে বললো শুভ বসন্ত মা।আই লাভ ইউ । 
অনেকটা হকচাকিয়ে গিয়ে মেয়েকে জড়িয়ে ধরে শুভেচ্ছা জানালেন।১লা ফাল্গুনে এর কথা নিজের খেয়াল ছিলো না তাই মনে মনে লজ্জা পেলেন।

ঘুমের চিন্তা মঞ্জুরা বেগমের উড়ে গেলো চট করে জলদি তিনি একটিভ হয়ে গেলেন।মেয়ে উঠে গেলে তিনি আর ঘুমান না। নাস্তা রেডি করা, প্রফেসর সাহেবের কাপড় চোপড় ইস্ত্রি করা সংসারে কতো কাজ।

সব কাজ গুছিয়ে মা মেয়ে মিলে অপেক্ষা করছেন। বেলা নয়টা বাজে প্রফেসর সাহেব এখনো ফেরেন নি।মনে মনে তিনি অপেক্ষা করছেন কখন প্রফেসর সাহেব কলিঙ্গ বেল চাপবেন আর দৌড়ে গিয়ে দরজা খুলে উনাকে শুভ বসন্ত জানাবেন।

মঞ্জুরা জানেন মেয়ে এখানে তাঁর কম্পিটিটর।মেয়েও বাসার দরজার আশে পাশেই ঘুরঘুর করছে।প্রতি দিন উনি প্রায় সাড়ে আটটার কাছাকাছি সময়ে চলে আসেন। এই অতিরিক্ত তিরিশ মিনিট অপেক্ষা করা যেন তিরিশ দিন অপেক্ষার মতো দেখাচ্ছে। মা মেয়ে দুজনেই চোখে চোখ পড়লে মুচকি মুচকি হাসছেন। কিন্তু কেউ কারো কাছে ধরা দিচ্ছেন না।

এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো । দৌড়ে মা মেয়ে দুজনেই দরজায় গেলেন। মেয়ে দরজা খুললো।হাতে তিন কুড়ির গোলাপ নিয়ে প্রফেসর হাত বাড়িয়ে দুজনকে জড়িয়ে ধরে জানালেন শুভ বসন্ত।আই লাভ ইউ । 
সারপ্রাইজ হয়ে মা মেয়ে প্রফেসর সাহেবকে জড়িয়ে ধরে শুভেচ্ছা জানালেন।

একটু ফাঁক পেতেই শিশু মেয়ে বাবার কাছে জানতে চাইলো “ বাবা আমরা তো দুইজন কিন্তু তুমি তিনটে কুড়ি আনলে কেন ?দুটো বা চারটে ফুল আনলেই তো পাড়তে।আনলে আনলে একটাতে আবার পাপড়ি নাই।

মুচকী হেসে প্রফেসর সাহেব মেয়েকে জবাব দিলেন যেটায় পাপড়ি নাই ঐটা তোমার মায়ের আর আমার পরিচয়ের প্রথম দিকের ভালোবাসার জন্য।

তাহলে যেটা ফুটে আছে সেটা ?
বিয়ের পরে আমাদের সংসারের জন্য ।

আর যেটা এখনো পাপড়ি ছড়ায় নি ?
তোমার জন্মের পর থেকে আমাদের ভালোবাসার জন্য।

বাবা মেয়ের সংলাপে কোথা থেকে যেন মঞ্জুরা মাহবুব চুপি চুপি ড্রইং রুমে এসে বলে বসলেন শুভ বসন্ত। আই লাভ ইউ।
বলেই তিনি ভীষণ লজ্জা পেয়ে গেলেন।প্রফেসর সাহেবের পেছনে দাঁড়িয়ে মেয়ে মায়ের লুকোচুরি দেখছে আর হাসছে।মঞ্জুরা মাহবুব লজ্জায় লাল হয়ে গেলেন।বাবা মেয়ে এক সাথে হেসে উঠে জড়িয়ে ধরে জানালেন শুভ বসন্ত। আই লাভ ইউ ।

Facebook Comments

faisal hawree

সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে জন্ম। কাঁচ-পাকা চুল, দাঁড়িসমেত ইঁচড়ে পাকা যুবক।পেশাদার ট্র্যাভেল ব্লগার।ঘুরে বেড়াই ও লিখি।শখের বশে সাহিত্য চর্চা করি।সদালাপী,অলস ও স্বপ্নবাজ। জীবনের উদ্যেশ্য খুজে পাই নি।মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত।যতক্ষণ শ্বাস চলে ততক্ষণ সুবাহানাল্লাহ

faisal hawree has 14 posts and counting. See all posts by faisal hawree

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.