‘উদ্যোক্তাগিরি’ যেন বেকারত্ব নিরসনের এক মাইলফলক!

‘উদ্যোক্তাগিরি’ বর্তমানে আলোচিত একটা বিষয়। ২০১৭ সালে যাত্রা শুরুকারী এই প্লাটফর্মটি আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তির যুগে তরুণ সমাজের নিকট বেশ সমাদৃত হয়েছে।

‘উদ্যোক্তাগিরি’ প্লাটফর্মটির প্রতিষ্ঠাতা হলেন ২৮ বছর বয়সী তরুণ মো: মাহিনুর আলম। ঠাঁকুরগাও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার অন্তর্গত ভেবড়া গ্রামে জন্মগ্রহণকারী এই যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রন মাহিনুর নামে বেশ পরিচিতি লাভ করেছেন।

উদ্যোক্তাগিরি হচ্ছে এমন একটি ক্ষেত্র; যেখানে শিক্ষিত-অশিক্ষিত সকল লোক তার সৃজনীশক্তি, অধ্যবসায় আর কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ক্যারিয়ার উন্নয়নের পাশাপাশি নিজেকে দক্ষ ও সফল করার পথ খুঁজে পাবে।

এ প্লাটফর্মটির প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে বেকারত্ব সমস্যা দূরীকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি প্রযুক্তিনির্ভর উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলা। এটি তরুণ সমাজকে উপযুক্ত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের কর্মদক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করে এবং সকল বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে উৎসাহ প্রদান করে।

এ প্লাটফর্মটি অনলাইনে দেশীয় পণ্য ও সেবা বিক্রেতাদের প্রমোট করছে এবং নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি করছে। বাংলাদেশের দারিদ্র্যতা দূর করার লক্ষ্যে বেকার জনসমষ্টির জন্য এক বিশাল কর্মসংস্থান তৈরির প্রচেষ্টায় অবিরত কাজ করে যাচ্ছে এর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিরা।

কোন ব্যাক্তি যদি নিজেকে তাদের মাধ্যমে প্রমোট করাতে চায়, তবে তাকে উদ্যোক্তাগিরির নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রদত্ত নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে তাদের ওয়েবসাইটে পাঠাতে হবে। পরবর্তীতে, এ প্লাটফর্মটি উৎসাহী ব্যাক্তির সাথে অনলাইনে যোগাযোগ করে তাকে সহায়তা করবে; এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এ প্লাটফর্মটি।

বর্তমানে অনেকে মনে করেন যে, উদ্যোক্তা হওয়া কঠিন কাজ। কারণ উদ্যোক্তা হতে হলে মানুষের মধ্যে সৃজনশীলতা থাকতে হবে। আসলে কথাটা পুরোপুরিভাবে সঠিকও নয় আবার ভুলও নয়। তবে, কারো মধ্যে যদি কিছুটা সৃজনীশক্তি আর সাথে যদি থাকে সঠিক কর্মপরিকল্পনা এবং তা বাস্তবায়নের জন্য অদম্য সাহস ও কঠোর পরিশ্রম তবে উদ্যোক্তা হিসেবে তার সফলতা কেউ ঠেকাতে পারবেনা।

কথায় আছে, আত্নবিশ্বাস আর অধ্যবসায় মানুষকে উন্নতির চরম শিখরে পৌছাতে পারে। ঠিক তেমনি দৃঢ় মনোবল আর আত্নবিশ্বাস এর সাথে যদি কারো মধ্যে প্রচন্ড পরিমাণে উৎসাহ-উদ্দীপনা আর ব্যর্থতায় হতাশ না হয়ে তা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে নতুন উদ্যমে কাজ করার মন-মানসিকতা থাকে, তবে সেই সফল উদ্যোক্তা হতে পারে।

প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে ফলাফল অনিশ্চিত ও ঝুঁকিবহুল জেনেও যে নিজের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি অপরের কর্মসংস্থান তৈরির প্রচেষ্টায় নিজেকে নিয়োজিত রাখে, সেই উদ্যোক্তা। আর উদ্যোক্তাগিরির কাজ হচ্ছে এমন সব উদ্যোক্তাদের প্রয়োজনীয় সকল প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে তাদের দক্ষ করে গড়ে তুলা।

বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। আর এই ডিজিটাল যুগে বাংলাদেশের দুই-তৃতীয়াংশ লোক আজ বেকার। আর এই বেকারত্বের প্রধান কারন সঠিক উদ্যোক্তার স্বল্পতা। বেকারত্বের কারনেই বাংলাদেশ আজও উন্নয়নশীল দেশ হতে উন্নত দেশে পরিণত হতে পারছেনা। কারণ, এ বিশাল বেকার জনগোষ্ঠীকে সাথে নিয়ে কোন দেশ উন্নতির চরম শিখরে পৌছতে পারবেনা। এক্ষেত্রে, কাঙ্খিত উন্ন্যয়নের লক্ষ্যে উদ্যোক্তাগিরি কাজ করে যাচ্ছে।

লেখকঃ Samia Rahman Samu
আরও পড়ুনঃ
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.