ছয় ঘন্টা ধরে নির্যাতন, এটা পরিকল্পিত হত্যাকান্ডঃ আবরারের বাবা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ্ বলেছেন, আবরারকে পরিকল্পিতভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছে হত্যাকারীরা।

তিনি বলেন, আমার ছেলেকে ১/২ দু’জন হত্যা করেনি, ১৫ জন মিলে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। আমি সবার ফাঁসি চাই।

আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ্ বলেন, এটা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। যে ছেলেটা বিকেল ৫টায় ঢাকায় পৌঁছাল, তাকে ৮টার দিকে নির্যাতন করার জন্য ডেকে নিয়ে গেল। ছয় ঘণ্টা ধরে নির্যাতন চালাল, এটা অবশ্যই পরিকল্পিত।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টায় কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই রোডস্থ আল-হেরা জামে মসজিদে আবরারের দ্বিতীয় জানাজা শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

এর আগে ঢাকা থেকে মরদেহবাহী গাড়িতে করে আবরার ফাহাদের মরদেহ তার নিজ গ্রাম কুষ্টিয়ার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গায় আনা হয়।

আবরার ফাহাদের প্রথম জানাজার নামায অনুষ্ঠিত হয় সোমবার রাত পৌনে ১০টায় বুয়েটের কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে । পরে এ্যাম্বুলেন্সে করে আবরার ফাহাদের মরদেহ তার নিজ গ্রাম কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের রায়ডাঙ্গায় আনা হয়।

উল্লেখ্য, রোববার রাত তিনটার দিকে বুয়েট’র শেরে বাংলা হলের দ্বিতীয়তলা থেকে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করে কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, রোববার রাত আটটার দিকে ছাত্রলীগের কর্মীরা আবরারকে তার রুম থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে রাত দুইটার দিকে শেরে বাংলা হলের প্রথমতলা ও দ্বিতীয়তলার মাঝামাঝি জায়গায় ফাহাদের মরদেহ দেখতে পায় অন্য শিক্ষার্থীরা। তার পুরো শরীরে আঘাতের চিহ্ন লক্ষ্য করা গেছে। ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ
Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.