শ্রীহট্ট থেকে সিলেট, কিভাবে হলো ?

শ্রীহট্ট থেকে সিলেট,প্রাচীন গ্রন্থাদিতে এ অঞ্চলকে বিভিন্ন নামের উল্লেখ্য আছে। হিন্দুশাস্ত্র অনুসারে শিবের স্ত্রী সতি দেবীর কাটা ‘হাত’ এই অঞ্চলে পড়েছিল, যার ফলে ‘শ্রী হাত’ হতে শ্রীহট্ট নামের উৎপত্তি বলে হিন্দু সম্প্রদায় বিশ্বাস করেন। 

খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতকের ঐতিহাসিক এরিয়ান লিখিত বিবরণীতে এই অঞ্চলের নাম “সিরিওট” বলে উল্লেখ আছে। এছাড়া, খ্রিস্টীয় দ্বিতীয় শতকে এলিয়েনের (Ailien) বিবরণে “সিরটে”, এবং পেরিপ্লাস অব দ্যা এরিথ্রিয়ান সী নামক গ্রন্থে এ অঞ্চলের নাম “সিরটে” এবং “সিসটে” এই দুইভাবে লিখিত হয়েছে। 

৬৪০ খ্রিস্টাব্দে যখন চীনা পরিব্রাজক হিউয়েন সাং এই অঞ্চল ভ্রমণ করেন। তিনি তাঁর ভ্রমণ কাহিনীতে এ অঞ্চলের নাম “শিলিচতল” উল্লেখ করেছেন তুর্কি সেনাপতি ইখতিয়ার উদ্দীন মুহম্মদ বখতিয়ার খলজী দ্বারা বঙ্গবিজয়ের মধ্য দিয়ে এদেশে মুসলিম সমাজব্যবস্থার সূত্রপাত ঘটলে মুসলিম শাসকগণ তাঁদের দলিলপত্রে “শ্রীহট্ট” নামের পরিবর্তে “সিলাহেট”, “সিলহেট” ইত্যাদি নাম লিখেছেন বলে ইতিহাসে পাওয়া যায়। আর এভাবেই শ্রীহট্ট থেকে পরিবর্তিত হতে হতে একসময় সিলেট নামটি প্রসিদ্ধ হয়ে উঠেছে বলে ঐতিহাসিকরা মনে করেন।

এছাড়াও বলা হয়, এক সময় সিলেট জেলায় এক ধনী ব্যক্তির একটি কন্যা ছিল। তার নাম ছিল শিলা। ব্যক্তিটি তার কন্যার স্মৃতি রক্ষার্থে একটি হাট নির্মাণ করেন এবং এর নামকরণ করেন শিলার হাট। এই শিলার হাট নামটি নানাভাবে বিকৃত হয়ে সিলেট নামের উদ্ভদ হয়। ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দের ১ আগষ্ট দেশের ষষ্ঠ বিভাগ হিসাবে সিলেট মর্যাদা পায়।

প্রকৃতির বিচিত্র লীলাভূমি বলেই যে সিলেটকে শ্রীভূমি বলা হয় তা যেমন সত্যি, তেমনি সূফি-দরবেশ-দেব-দেবী তথা প্রাচীন পৌরাণিক বিশ্বাসের অমলীন স্পর্শধোয়া ভূমির পবিত্রতার প্রতীক হিসেবেও সিলেটকে শ্রীভূমি বলা হয়। বর্তমান সিলেটের পূর্বনাম ছিলো শ্রীহট্ট। পুরনো কাগজপত্র দলিল-দস্তাবেজে সিলেটকে শ্রীহট্ট হিসেবেই উদ্ধৃত করা আছে। এমনকি পুরনো স্থাপনাগুলোর নামফলকে এখনো শ্রীহট্ট উদ্ধৃতিই দেখা যায়। সিলেটের ইতিহাস বিষয়ক অন্যতম পুরনো গ্রন্থ হিসেব ১৯১০ সালে প্রকাশিত অচ্যুতচরণ চৌধুরী তত্ত্বনিধি’র ‘শ্রীহট্টের ইতিবৃত্ত’ গ্রন্থটির ঢাউস সাইজের খণ্ড দুটোতে (পূর্বাংশ ও উত্তরাংশ) শ্রীহট্ট ছাড়া সিলেট শব্দটির কথা কোথাও পাওয়া যায় না।

এখন প্রশ্ন হলো , শ্রীহট্ট থেকে এই সিলেট নামের বিবর্তনটা কীভাবে হলো ?

এ বিষয়ে শোনা কিংবদন্তীতুল্য একটা কাহিনী হচ্ছে, হযরত শাহজালাল (রাঃ) যখন শ্রীহট্টের দিকে আগমন করেন তখন তৎকালীন হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দ তাঁর আগমন থামাতে শ্রীহট্ট সীমান্তে তাঁর কথিত জাদু ক্ষমতার দ্বারা পাথরের দেয়াল বা পাহাড়ের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেন।

হয়রত শাহজালাল ও তাঁর অলৌকিক ক্ষমতা দিয়ে ‘শিল হট্’ বলতেই সেই শিল বা পাথরের প্রতিন্ধক হটে যায় বা অপসারিত হয়। এ থেকেই এই ভূমর অন্য নাম হয়েছে শিল-হট থেকে সিলেট। তবে অনেকে এ কাহিনী কে যুক্তিহীন কল্পনাফলপ্রসূ বলে মনে করেন। বরং বৃটিশ আমলেই এই সিলেট শব্দটির সৃষ্টি হয়েছে বলে ধারণা করি।

কেননা পুরনো কাগজপত্রে বাংলায় শ্রীহট্ট হিসেবে লেখা হলেও ভারতের সরকারি নথিপত্রে যেমন আসাম গেজেটিয়ারে (Assam District Gazetteers) বা অন্যত্র শ্রীহট্টকে ইংরেজিতেই প্রথম ‘সিলহেট’ (Sylhet) হিসেবে উদ্ধৃত হতে দেখা যায়। তৎকালীন ভারতবর্ষে শাসক হিসেবে আধিপত্যকারী বৃটিশদের নিজস্ব ইংরেজি উচ্চারণে অন্য অনেক বাংলা যুক্তশব্দের বিবর্তন প্রক্রিয়ার মতোই ‘শ্রীহট্ট’ শব্দটিও যে ভিন্নমাত্রিক ‘সিলহেট’ শব্দে বিবর্তিত হয়ে বর্তমান ‘সিলেট’-এ রূপান্তরিত হয়েছে, এই ব্যাখ্যাই যুক্তিসঙ্গত মনে হয়।

আর শ্রীহট্ট নামের উৎপত্তি নিয়েও রয়েছে ব্যাপক অস্পষ্টতা। এর সাথে হিন্দু পৌরাণিক মিথের প্রভাব জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হয়। 

হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী শ্রী শ্রী হাটকেশ্বর হচ্ছে মহাদেব শিবের বহু নামের অন্যতম। তৎকালীন গৌড় (শ্রীহট্ট) রাজাদের কর্তৃক পুজিত শ্রী হাটকেশ্বরই শ্রীহট্ট নামের উৎস বলে অনেকে মনে করেন।

Facebook Comments

5 thoughts on “শ্রীহট্ট থেকে সিলেট, কিভাবে হলো ?

  • December 28, 2018 at 8:22 am
    Permalink

    এই রকম বিস্তারিত ভাবে সিলেটের আদি নামের ইতিহাস অনেক দিন যাবৎ খুজতেছিলাম।
    আজ জানতে পারলাম।
    ধন্যবাদ।

  • December 29, 2018 at 4:17 am
    Permalink

    Thanks for sharing.

  • January 5, 2019 at 4:49 am
    Permalink

    আপনার মূল্যবান কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ।
    সাথেই থাকুন।

  • January 5, 2019 at 4:50 am
    Permalink

    Welcome.
    Please visit our another post.

  • September 11, 2019 at 6:49 pm
    Permalink

    খুব ভাল কাম করছেন আপনারা। আগামীতে আরো ভাল ভাল লেখা আশা করছি..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.